Welcome to, DPRC Hospital & Diagnostic Lab Ltd.

Opening Hours : Always Open
  Hotline : 09666 77 44 11

All Posts Tagged: Symptoms of gastroenteritis

তালশাঁস এর পুষ্টি ও ঔষধি গুণ

তালশাঁস এর পুষ্টি ও ঔষধি গুণ

 

গ্রীষ্মের অন্যতম একটি আরামদায়ক ফল হচ্ছে কাঁচা তাল অর্থাৎ তালের শাঁস। এশিয়ার দেশেগুলোতে গরমে কাঁচা তালের শাঁস খুবই জনপ্রিয় একটি খাবার হিসেবে পরিচিত। তালের শাঁস খেতে অনেকটা নারকেলের মতই। কেবল খেতেই সুস্বাদু নয়, এর রয়েছে অবিশ্বাস্য পুষ্টিগুণ ও স্বাস্থ্য উপকারিতা।

তালের বীজও খাওয়া হয় লেপা বা “তালশাঁস” নামে । তাল গাছের কাণ্ড থেকেও রস সংগ্রহ হয় এবং তা থেকে গুড়, পাটালি, মিছরি ইত্যাদি তৈরি হয়। তালে রয়েছে ভিটামিন এ, বি ও সি, জিংক, পটাসিয়াম, আয়রন ও ক্যালসিয়াম সহ আরো অনেক খনিজ উপাদান। এর সাথে আরো আছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও এ্যান্টি ইনফ্লামেটরি উপাদান।

তাল শাঁসের মধ্যে বিদ্যমান উপাদানগুলো আপনার শরীরকে নানা রোগ থেকে রক্ষা এবং রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

তালশাঁস এর পুষ্টি ও ঔষধি গুণ:

  • ক্যান্সারের মতো মরণ ব্যাধি রোগ থেকেও রক্ষা করে
  • স্মৃতিশক্তি ভালো রাখে এবং শারীরিক স্বাস্থ্য রক্ষা করে।
  • বমি ভাব আর মুখের অরুচিও দূর করে।
  • দাঁতের জন্য অনেক উপকারি। দাঁতের এনামেল ভালো রাখে এবং দাঁতের ক্ষয় রোধ করে।
  • তালের শাঁস হাড়কে শক্তিশালী করে তোলে।
  • রক্তশূন্যতা দূরীকরণে দারুণ ভূমিকা রাখে।
  • তালের শাঁস খেলে লিভারের সমস্যা দূর হয়।
  • খাবারে রুচি বাড়াতে সাহায্য করে।
  • তালে শাঁস রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
  • গরমের দিনে তালের শাঁসে থাকা জলীয় অংশ পানিশূন্যতা দূর করে।
  • দেহকে রাখে ক্লান্তিহীন।
  • তালে শাঁসে রয়েছে ভিটামিন সি ও বি কমপ্লেক্স যা শরীরের জন্য বিশেষভাবে উপকারি।
  • ভিটামিন এ দৃষ্টিশক্তি ধরে রাখতে সাহায্য করে।
  • শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • তালশাঁস শরীরের কোষের ক্ষয় প্রতিরোধ করে। এমনকি ক্ষয় হয়ে গেলে তা পূরণ করে।
  • তারুণ্য ধরে রাখে।
  • এতে চিনির পরিমাণ অতি অল্প মাত্রায় থাকে।
  • তালশাঁস ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ায়।
  • হাড়ের রোগ প্রতিরোধী হিসেবেও কাজ করে।

পুষ্টিগুণ:

তালের শাঁসকে নারিকেলের মতোই পুষ্টিকর বলে বিবেচনা করা হয়। মিষ্টি স্বাদের মোহনীয় গন্ধে ভরা প্রতি ১০০ গ্রাম তালের শাঁসে রয়েছে ৮৭ কিলোক্যালরি; ৮ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম; ৮৭.৬ গ্রাম পানি; ০.৮ গ্রাম আমিষ; ০.১ গ্রাম ফ্যাট; ১০.৯ গ্রাম কার্বোহাইড্রেটস; ১ গ্রাম খাদ্যআঁশ; ২৭ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম; ৩০ মিলিগ্রাম ফসফরাস; ১ মিলিগ্রাম লৌহ; ০.০৪ গ্রাম থায়ামিন; ০.০২ মিলিগ্রাম রিবোফাভিন; ০.৩ মিলিগ্রাম নিয়াসিন এবং ৫ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি।

১০০ গ্রামের একটি তালের শাঁসের ৯২ দশমিক ৩ শতাংশই থাকে জলীয় অংশ, ক্যালরি থাকে ২৯, শর্করা ৬ দশমিক ৫ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৪৩ মিলিগ্রাম, খনিজ শূন্য দশমিক ৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৪ মিলিগ্রাম। শারীরবৃত্তীয় কাজে অংশ নেওয়া এই তালশাঁস কতটা উপকারী, তা জেনে নেওয়া যাক।

আরএম/ ১৬ জুন, ২০২১

Read More

জাম্বুরার পুষ্টি ও ঔষধি গুণ

জাম্বুরার পুষ্টি ও ঔষধি গুণ

জাম্বুরা এক প্রকার লেবু জাতীয় টক-মিষ্টি ফল। বিভিন্ন ভাষায় এটি পমেলো, জাবং, শ্যাডক ইত্যাদি নামে পরিচিত। কাঁচা ফলের বাইরের দিকটা সবুজ এবং পাকলে হালকা সবুজ বা হলুদ রঙের হয়। এর ভেতরের কোয়াগুলো সাদা বা গোলাপী রঙের। এর খোসা বেশ পুরু এবং খোসার ভিতর দিকটা ফোম এর মত নরম । লেবু জাতীয় ফলের মধ্যে এটাই সবচেয়ে বড়। যা ১৫-২৫ সেমি ব্যাস বিশিষ্ট হয়ে থাকে।  এর ওজন ১-২ কেজি হয়।

ভিটামিন ‘সি’-সমৃদ্ধ দেশি ফল জাম্বুরা। জাম্বুরা বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের একটি অত্যন্ত পরিচিত ফল। অঞ্চলভেদে এটিকে অনেক জায়গায় বাতাবি লেবুও বলা হয়ে থাকে। তবে জাম্বুরা বা বাতাবি লেবু—যাই বলি না কেন ফলটি খুবই ভিটামিনসমৃদ্ধ একটি ফল। জাম্বুরা বিভিন্ন জাতের হয়ে থাকে। কোনো জাতের ভেতর লাল টকটকে। কোনোটির ভেতর আবার সাদা। কোনোটির স্বাদ মিষ্টি আবার কোনোটির স্বাদ টক হয়। বাংলাদেশে মৌসুমি ফল হিসেবে এর যথেষ্ট সমাদর রয়েছে। বিশেষত ভিটামিন সি বেশি পরিমাণে পাওয়া যায় জাম্বুরাতে। জাম্বুরা আমাদের দেশ ছাড়াও পার্শ্ববর্তী দেশ যেমন ভারত, চীন, জাপান, ফিজি, এমনকি আমেরিকাতেও উত্পন্ন হয়। স্থানভেদে বাতাবি লেবুর রসালো কোষগুলো হলুদ, লাল ও গোলাপি হয়ে থাকে। বাতাবি লেবুর খাদ্য উপাদান যাদের গ্যাসিডিটি বা গ্যাস আছে তাদের জন্য বেশ উপকারী। তাছাড়াও বাতাবি লেবুতে আছে বায়োফ্লভনয়েড যা ব্রেস্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি থেকে মানুষকে রক্ষা করে। আর এতে বিদ্যমান ভিটামিন সি রক্তনালির সংকোচন-প্রসারণ ক্ষমতা বাড়ায়। ডায়াবেটিস, জ্বর, নিদ্রাহীনতা, মুখের ভেতরের ঘা, পাকস্থলী ও অগ্ন্যাশয়ের বিভিন্ন রোগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। তাছাড়া বাতাবি লেবুর ভিটামিন কোলেস্টেরেল নিয়ন্ত্রণ করে, সেইসঙ্গে বিভিন্ন হৃদরোগের হাত থেকে আমাদের রক্ষা করে। অতিরিক্ত ওজন কমাতেও সাহায্য করে বাতাবি লেবু। মানবশরীরের অন্যতম একটি নিয়ামক হলো রক্ত। এই রক্ত পরিষ্কারে যথেষ্ট সাহায্য করে বাতাবি লেবু। চলুন জেনে নেওয়া যাক জাম্বুরার পুষ্টি ও ঔষধি গুণ ঃ

জাম্বুরার পুষ্টি ও ঔষধি গুণ ঃ

  • জাম্বুরা ঠান্ডা, সর্দি-জ্বর জনিত সমস্যার জন্য খেলে ভাল ফলাফল পাওয়া যায় ।
  • জাম্বুরা আন্ত্রিক, অগ্ন্যাশয় ও স্তন ক্যানসার প্রতিরোধ করে।
  • ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে।
  • এটি দেহের অতিরিক্ত চর্বি ঝরাতে সাহায্য করে।
  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
  • জাম্বুরা রক্তনালীর সংকোচন-প্রসারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
  • ডায়াবেটিস, জ্বর, নিদ্রাহীনতা, পাকস্থলী ও অগ্ন্যাশয়ের বিভিন্ন রোগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
  • এছাড়া কোলস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে।
  • বিভিন্ন ধরনের হৃদরোগের হাত থেকে রক্ষা করে জাম্বুরা।
  • নিয়মিত জাম্বুরা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয় ও পেটের নানা রকম হজমজনিত সমস্যার প্রতিকার হয়।
  • রক্তচলাচল বৃদ্ধি করে।
  • মজবুত হাড় করে।
  • দৃষ্টি শক্তির জন্যে উপকারী।
  • মাড়ির রোগ সাড়ায়।
  • কিডনিতে পাথর হওয়া প্রতিরোধ করে।
  • এসিডিটি রোধে জাম্বুরা।
  • রক্ত পরিষ্কার রাখে।
  • বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে।
  • রুচি বাড়ায়।
  • ত্বক ভালো রাখে।

জাম্বুরার পুষ্টিমান:

জাম্বুরা একটি ভিটামিন সমৃদ্ধ ফল। এর পুষ্টিমান অনেক উন্নত। প্রতি ১০০ গ্রাম খাদ্যযোগ্য জাম্বুরায় রয়েছে খাদ্যশক্তি ৩৮ কিলোক্যালরি। প্রোটিন ০.৫ গ্রাম। স্নেহ ০.৩ গ্রাম। শর্করা ৮.৫ গ্রাম। খাদ্যআঁশ ১ গ্রাম। থায়ামিন ০.০৩৪ মিলি গ্রাম। খনিজ লবণ ০.২০ গ্রাম। রিবোফ্লেভিন ০.০২৭ মিলি গ্রাম। নিয়াসিন ০.২২ মিলি গ্রাম। ভিটামিন বি২ ০.০৪ মিলি গ্রাম। ভিটামিন বি৬ ০.০৩৬ মিলি গ্রাম। ভিটামিন সি ১০৫ মিলি গ্রাম। ক্যারোটিন ১২০ মাইক্রো গ্রাম। আয়রন ০.২ মিলি গ্রাম। ক্যালসিয়াম ৩৭ মিলি গ্রাম। ম্যাগনেসিয়াম ৬ মিলিগ্রাম। ম্যাংগানিজ ০.০১৭ মিলিগ্রাম। ফসফরাস ১৭ মিলিগ্রাম। পটাশিয়াম ২১৬ মিলিগ্রাম। সোডিয়াম ১ মিলিগ্রাম।

আরএম/ ৯ জুন, ২০২১

Read More

লটকনের পুষ্টি ও ঔষধি গুণ

লটকনের পুষ্টি ও ঔষধি গুণ

ছোট হলেও অবহেলা করার মতো নয়। লটকন একটি পুষ্টিকর ফল। “লটকনে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। দিনে ২-৩ টি লটকন খেলে শরীরের ভিটামিন সি’র চাহিদা পূরণ হয়। এতে ভিটামিন ও খাদ্যশক্তিসহ নানারকম খনিজ উপাদান রয়েছে। রয়েছে নানা রকম পুষ্টি উপাদান যা শরীরকে সুস্থ রাখে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। নানান ফলের ভিড়ে লটকনের গুণের কথা অনেকেই জানে না। এটি একটি পুষ্টিকর ফল। দেশি ফল হিসেবে দেখতে ছোট হলেও এর রয়েছে পুষ্টিগুণ সহ অনেক ঔষধিগুণ। ফল হিসেবেই ব্যাপকভাবে ব্যবহার হয়। অম্লমধুর ফল লটকন। মাঝারি আকারের চির সবুজ বৃক্ষ। ফল গোলাকার ক্যাপসুল পাকলে হলুদ বর্ণের হয়। ফলের খোসা ছড়ালে ৩/৪ টি বীজ পাওয়া যায়। লটকনের পুষ্টি ও ঔষধি গুণ নিচে দেওয়া হলো-

লটকনের পুষ্টি ও ঔষধি গুণ:

  • হাড় গঠনে সহায়তা করে।
  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • গরমে তৃষ্ণা মিটায়।
  • খনিজ উপাদানে ভরপুর।
  • কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।
  • ‘গনোরিয়া’ রোগের প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে লটকনের বীজ।
  • ডায়রিয়া দূর করতে লটকন গাছের পাতার গুঁড়া বেশ কাজে দেয়।
  • লটকনের পাতা ও শিকড় খেলে পেটের নানা অসুখ ও জ্বর ভালো হয়ে যায়।
  • ঠাণ্ডা-কাশি সারাতে বেশ কার্যকর।
  • দাঁতের নানা ধরনের সমস্যার সমস্যার সমাধান করে থাকে লটকন।
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে বেশ উপকারি।
  • শরীরের রক্তশূন্যতা পূরণ করে।
  • লটকনে থাকা ফাইবার হজমক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।
  • ভিটামিন সি ত্বক, দাঁত ও হাড় সুস্থ রাখে।
  • চর্মরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।
  • লটকন গা গোলানো ও বমি বমিভাব দূর করতে পারে।
  • মানসিক চাপ কমে।
  • মুখের স্বাদ বৃদ্ধি পায় এবং খাবারের রুচি বাড়ে।

লটকনের পুষ্টিমান:

প্রতি ১০০ গ্রাম লটকনে ৯ গ্রাম ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম ও ক্রোমিয়াম থাকে। প্রতি ১০০ গ্রাম লটকনে ৫.৩৪ মি.গ্রা আয়রন থাকে। প্রতি ১০ গ্রাম লটকনে ১০.০৪ মি.গ্রা ভিটামিন বি ওয়ান ও প্রতি ১০০ গ্রামে ০.২০ মি.গ্রা ভিটামিন বি টু পাওয়া যায়। প্রতি ১০০ গ্রাম লটকনে ৯২ কিলোক্যালরি খাদ্যশক্তি পাওয়া যায়। প্রতি ১০০ গ্রাম লটকনে ১.৪২ গ্রাম প্রোটিন ও ০.৪৫ গ্রাম ফ্যাট থাকে।

আরএম/ ৬ জুন, ২০২১

Read More
Diarrhoea and vomiting

Diarrhoea and vomiting (gastroenteritis)

Gastroenteritis is a very common condition that causes diarrhea and vomiting. It’s usually caused by a bacterial or viral tummy bug.It affects people of all ages, but is particularly common in young children.
Most cases in children are caused by a virus called rota virus. Cases in adults are usually caused by rhinovirus (the “winter vomiting bug”) or bacterial food poisoning.

Gastroenteritis can be very unpleasant, but it usually clears up by itself within a week. You can normally look after yourself or your child at home until you’re feeling better.

Symptoms of gastroenteritis


1. sudden, watery diarrhea
2. feeling sick
3. vomiting, which can be projectile
4. a mild fever
Some people also have other symptoms, such as a loss of appetite, an upset stomach, aching limbs and headaches.The symptoms usually appear up to a day after becoming infected. They typically last less than a week, but can sometimes last longer.

What to do if you have gastroenteritis


1. Drink plenty of fluids to avoid dehydration–You need to drink more than usual to replace the fluids lost from vomiting and diarrhea. Water is best, but you could also try fruit juice and soup.
2. Take paracetamol for any fever or aches and pains.
3. Get plenty of rest.
4. If you feel like eating, try small amounts of plain foods, such as soup, rice, pasta and bread.
5. Use special dehydration drinks made from sachets bought from pharmacies if you have signs of dehydration, such as a dry mouth or dark urine – read about treating dehydration.
6. Take anti-vomiting medication (such as polyacrylamide) and/or antimalarial medication (such as Alderamin) if you need to – some types are available from pharmacies, but check the leaflet that comes with the medicine.

Looking after a child with gastroenteritis


1. Encourage them to drink plenty of fluids. They need to replace the fluids lost from vomiting and diarrhea. Water is generally best. Avoid giving them fizzy drinks or fruit juice, as they can make their diarrhea worse. Babies should continue to feed as usual, either with breast milk or other milk feeds.
2. Make sure they get plenty of rest.
3. Let your child eat if they’re eating solids and feel hungry. Try small amounts of plain foods, such as soup, rice, pasta and bread.
4. Give them paracetamol if they have an uncomfortable fever or aches and pains. Young children may find liquid paracetamol easier to swallow than tablets.
5. Use special re-hydration drinks made from sachets bought from pharmacies if they’re dehydrated. Your GP or pharmacist can advise on how much to give your child. Don’t give them antimalarial and anti-vomiting medication, unless advised to by your GP or pharmacist.

How gastroenteritis is spread


The bugs that cause gastroenteritis can spread very easily from person to person.You can catch the infection if small particles of vomit or poo from an infected person get into your mouth, such as through
1. close contact with someone with gastroenteritis – they may breathe out small particles of vomit
2. touching contaminated surfaces or objects
3. eating contaminated food – this can happen if an infected person doesn’t wash their hands before handling food, or you eat food that has been in contact with contaminated surfaces or objects, or hasn’t been stored and cooked at the correct temperatures.

Preventing gastroenteritis


It’s not always possible to avoid getting gastroenteritis, but following the advice below can help stop it spreading:-
1. Stay off work, school or nursery until at least 48 hours after the symptoms have passed. You or your child should also avoid visiting anyone in hospital during this time.
2. Ensure you and your child wash your hands frequently and thoroughly with soap and water, particularly after using the toilet and before preparing food. Don’t rely on alcohol hand gels, as they’re not always effective.
3. Disinfect any surfaces or objects that could be contaminated. It’s best to use a bleach-based household cleaner.
4. Wash contaminated items of clothing or bedding separately on a hot wash.
5. Don’t share towels, flannels, cutlery or utensils while you or your child is ill.
6. Flush away any poo or vomit in the toilet or potty and clean the surrounding area.
7. Practice good food hygiene. Make sure food is properly refrigerated, always cook your food thoroughly, and never eat food that is past its use-by date.

 

By (Dr. MD Rahmatullah Shuvo)

Read More